1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৯ অপরাহ্ন

প্রতিবন্ধী ভাগ্নের ভোগদখলীয় ক্রয়কৃত সম্পত্তি জোরপূর্বক দখলের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলনে

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৬৭ বার পড়া হয়েছে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : আশাশুনির গোদাড়ায় আপন মামার বিরুদ্ধে এক অসহায় প্রতিবন্ধী ভাগ্নের দীর্ঘদিনের ভোগদখলীয় ক্রয়কৃত সম্পত্তি জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে বরেন আশাশুনির গোদাড়া গ্রামের শুকুর আলী সরদার এর ছেলে মনিরুল ইসলাম মধু। তিনি বলেন আমি একজন অসহায় শারিরীক প্রতিবন্ধী। ভারী কোন কাজ করতে পারি না। তারপরও অতিকষ্টে দ্বীন মজুরির কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। প্রায় ২৫ বছর যাবত গোদাড়া মৌজায় এস এ খতিয়ান নং-৪৩ ও ৪০, আর এস খতিয়ান নং ২৭১ ও ২৭২, নতুন দাগ- ৪৬০,৪৬২,৪৬৩ দাগে মোট .৫৭শতক জমি আমার নানা ইন্তাজ আলী গাজী জীবিত থাকা অবস্থায় বসবাসের জন্য নানার কাছ থেকে উক্ত সম্পত্তি ক্রয় করে দীর্ঘদিন শান্তিপূর্ণভাবে ভোগদখল করে আসছিলাম। নানার মৃত্যুর পর আমার মামারা তাদের ভাগের সম্পত্তি ভিন্নভাবে দলিলে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে বিক্রয় করেন। এমনকি নানার কাছ থেকে ক্রয়কৃত আমার সম্পত্তিও সাতক্ষীরা শহরের বাসবাসরত মামা আয়ুব আলী অবৈধ লোভ ও লাভের বশবর্তী হয়ে আশাশুনি এলাকার চৌকিদার আব্দুস সাত্তারের কাছে বিক্রয় করেন। বিক্রয়ের পূর্বে আইয়ুব আলীর আদৌ কোন সম্পত্তি আছে কি না সেটি যাচাই-বাছাই না করে চৌকিদার আব্দুস সাত্তার সম্পত্তি ক্রয় করেন। এরপর থেকে প্রায়ই আমাদের সম্পত্তি জোরপূর্বক দখলের হুমকি প্রদর্শণ করে আসছিল। আমাদের কোন লোকজন না থাকায় চৌকিদার আব্দুস সাত্তার ভাড়াটিয়া লোকজন নিয়ে দেশীয় অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে গত ২৯ জুলাই‘২১ তারিখে মামা আইয়ুব আলীর উপস্থিতিতে বসতবাড়িতে প্রবেশ করে আমার বৃদ্ধা মাতা, আমার স্ত্রী, ছোট ভাইসহ আমাকে মারপিট করে গুরুতর জখম করে। এছাড়া বসতঘরের দরজা, জালানা ভাংচুর করে তার গর্ভবতী এক কন্যাসহ আমার ঘর দখল করে নেয়। এঘটনায় আশাশুনি থানায় অভিযোগ দায়ের করলে থানা মিমাংসা করে দেওয়ার প্রতিশ্রæতি দেন। সে অনুযায়ী শালিশী বৈঠক হলে সেখানে উপস্থিত উভয়পক্ষের আইনজীবীর একমত পোষন করে একটি সিদ্ধান্ত প্রদান করেন। সিদ্ধান্তে প্রমানিত হয় ইন্তাজ আলী দুইটি দলিলে আর এস দাস নির্দিষ্ট করা হয়েছে। অন্যান্য দলিল গুলিতে সকল দাগের মধ্য হতে বিক্রয় দেখানো হয়েছে। সুনির্দিষ্ট কোন দাগ উল্লেখ করা নাই। যেহেতু ইন্তাজ আলী তার অর্জিত সম্পত্তি ৩ অক্টোবর ২০১২ তারিখে বিক্রয় প্রাপ্য অপেক্ষা অতিরিক্ত বিক্রয় করিয়াছেন। সেক্ষেত্রে ইন্তাজ আলী হতে আইয়ুব আলী, আইয়ুব আলী হতে আব্দুস সাত্তারের পক্ষে নালিশী সম্পত্তিতে কোন স্বত্ব অর্জিত হয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হয় না। কিন্তু তারপরও থানা পুলিশ বলেন, তাদের ঘর থেকে কিভাবে নামাবো আপনারা আদালতের স্বরনাপন্ন হন। অথচ আমি বর্তমানে নিজের বসতবাড়ি থেকে উচ্ছেদ হয়ে পথে পথে ঘুরে বেড়াচ্ছি। তিনি আরো বলেন পর সম্পদ লোভী আইয়ুব আলী সেখানে তার কোন সম্পত্তি না থাকলেও চৌকিদারের কাছে বিক্রয় করে আমাদের ভিটেছাড়া করেছে। আমি একজন অসহায় প্রতিবন্ধী হিসেবে ওই অবৈধ দখলদার চৌকিদার সাত্তারের কবল থেকে আমার বসবতভিটা উদ্ধার পূর্বক নিজ বাড়িতে ফিরতে পারি তার জন্য আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ