1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :

হাসি ফোটান এই টেস্টে হঠাৎ দলে আসা সৌম্য সরকার

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১১ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৬৭ বার পড়া হয়েছে

স্পোর্টস ডেস্ক : প্রথম সেশনে মাত্র এক উইকেট পাওয়ার পর দ্বিতীয় সেশনে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত বাংলাদেশের। লাইন লেন্থ ঠিক রেখে বোলিং করার ফল পাচ্ছে টাইগাররা। ১০৪ রানের মধ্যে ক্যারিবীয়দের ৩ উইকেট তুলে নিয়েছে তারা। দ্বিতীয় সেশনের শুরুতেই দলকে আনন্দের উপলক্ষ্য এনে দেন আবু জায়েদ রাহির। তার বেরিয়ে যাওয়া এক ডেলিভারিতে ড্রাইভ খেলতে গিয়ে বল উইকেটে টেনে এনেছেন শায়ানে মোসলে। হয়েছেন বোল্ড। ৩৮ বল খেলে অনেকটাই সেট হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তবে ৭ রানের বেশি এগোতে পারেননি বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। এরপর তৃতীয় উইকেটের জন্য বেশি অপেক্ষা করতে হয়নি বাংলাদেশকে। এবার টাইবার শিবিরে হাসি ফোটান এই টেস্টে হঠাৎ দলে আসা সৌম্য সরকার। পার্টটাইমার এই পেসারকে ড্রাইভ খেলতে গিয়ে প্রথম স্লিপে নাজমুল হোসেন শান্তর ক্যাচ হয়েছেন ক্যারিবীয় অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েট। দুর্দান্ত ধারাবাহিক ব্রাথওয়েট এবারও চোখ রাঙাচ্ছিলেন। পৌঁছে গিয়েছিলেন হাফসেঞ্চুরির দোরগোড়ায়। ১২২ বলে ৪ বাউন্ডারির সাহায্যে ৪৭ রান করেন এই ওপেনার। চটগ্রামে সিরিজের প্রথম ম্যাচের দুই ইনিংসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্বোধনী জুটি ছিল যথাক্রমে ১১ ও ৩৯ রানের। ঢাকায় ফিরে উদ্বোধনী জুটিতে প্রথম ইনিংসেই ৬৬ রান তুলেন ক্রেইগ ব্রাথওয়েট ও জন ক্যাম্পবেল। এ দুজনের ব্যাটেই মূলত প্রথম সেশনটা নিজেদের করে নেয় ক্যারিবীয়রা। মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাওয়ার আগে ২৯ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ছিল ১ উইকেটে ৮৪ রান। মাঘের কুয়াশার মাঝে সূর্যের উঁকিঝুঁকি দেখে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিতীয়বার ভাবেননি ক্যারিবীয় অধিনায়ক। সফরে প্রথমবারের মতো কোনো নতুন খেলোয়াড়ের অভিষেক করায়নি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। কেমার রোচের বদলে আরেক পেসার আলঝারি জোসেফকে একাদশে নিয়ে ব্যাটিং করতে নামে তারা। অধিনায়কের সঙ্গে শুরু থেকেই আত্মবিশ্বাসী ও ইতিবাচক ব্যাটিং করতে থাকেন বাঁহাতি ওপেনার ক্যাম্পবেল। ইনিংসের প্রথম বলে দুই ও চতুর্থ বলে বাউন্ডারি হাঁকান ব্রাথওয়েট। ক্যাম্পবেল প্রথম বাউন্ডারির দেখা পান ইনিংসের চতুর্থ ওভারে গিয়ে। পরে তার ব্যাট থেকেই আসতে থাকে একের পর এক আক্রমণাত্মক শট। বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজুর রহমানের জায়গায় একমাত্র পেসার হিসেবে আবু জায়েদ রাহীকে নিয়ে বোলিং শুরু করে বাংলাদেশ। তার সঙ্গে নতুন বল ভাগ করে নেন অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। দুজনের কেউই নতুন বলের মুভমেন্ট কাজে লাগাতে পারেননি। প্রায় প্রতি ওভারেই এক-দুইটি করে শর্ট লেন্থ ডেলিভারি করেছেন মিরাজ। অন্যদিকে রাহী শুরুতে লাইন-লেন্থ খুঁজে পেতে সমস্যা হলেও ধীরে ধীরে নির্দিষ্ট জায়গায় বোলিং করতে থাকেন। কিন্তু এতে কোনো সমস্যাই হয়নি দুই ক্যারিবীয় ওপেনারের। স্বাচ্ছন্দ্যে রান নিয়েছেন তারা। ইনিংসের নবম ওভারে ক্যাম্পবেলকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেছিলেন রাহী। কিন্তু রিভিউ নিয়ে সে যাত্রায় নিজের উইকেট বাঁচান বাঁহাতি ওপেনার। রিপ্লেতে দেখা যায়, ভেতরে ঢোকা ডেলিভারিটি স্ট্যাম্পের ওপর দিয়ে চলে যেত। তখন ১৩ রানে অপরাজিত ছিলেন ক্যাম্পবেল। নতুন বলে মিরাজ কার্যকরী ভূমিকা রাখতে না পারায় দশম ওভারে আক্রমণে আনা হয় নাঈম হাসানকে। তার ব্যক্তিগত দ্বিতীয় ওভারে প্রথম ছক্কা হাঁকান ক্যাম্পবেল। এর পরের ওভারেই রাহীকে আক্রমণ থেকে সরিয়ে বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামকে ডেকে নেন টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক। শুরু থেকেই অল্পবিস্তর টার্ন পেতে শুরু করেন এ বাঁহাতি স্পিনার। তবে ব্যাট হাতেও দারুণ জবাব দিচ্ছিলেন ক্যাম্পবেল-ব্রাথওয়েটরা। ইনিংসের ১৫তম ওভারের প্রথম বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলীয় পঞ্চাশ পূরণ করেন ব্রাথওয়েট। দিনের প্রথম ঘণ্টা শেষে ক্যারিবীয়দের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৫ ওভারে বিনা উইকেটে ৫৫ রান। দ্বিতীয় ঘণ্টায় খানিক ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। এর বড় কৃতিত্ব তাইজুলের। তার করা ২১তম ওভারের চতুর্থ বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন ক্যাম্পবেল। প্রথমবারের মতো এবারও রিভিউ নেন ক্যারিবীয় ওপেনার। কিন্তু রিপ্লেতে দেখা যায়, বলটি আঘাত হানত সোজা মিডল স্ট্যাম্পে। যদিও এ রিভিউ নিয়ে রয়েছে খানিক ধোঁয়াশা। টিভি রিপ্লে দেখার সময় মনে হচ্ছিল, বলটি হয়তো ক্যাম্পবেলের ব্যাটে হালকা ছুঁয়ে গেছে। তবু থার্ড আম্পায়ার আউট দিয়ে দেয়ায় অসন্তোষ দেখা যায় ক্যারিবীয় কোচ ফিল সিমন্সের অভিব্যক্তিতে। তিনি কথা বলেন বাউন্ডারি লাইনের বাইরে দাঁড়ানো চতুর্থ আম্পায়ার মাসুদুর রহমান মুকুলের সঙ্গে। এতে অবশ্য লাভ হয়নি কোনো। ক্যাম্পবেলকে সাজঘরে ফিরতে হয়েছে ৬৮ বলে ৩৬ রানের ইনিংস নিয়ে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ