1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০১:২৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বিশ্বজুড়ে ডেল্টার ঢেউ: বিভিন্ন দেশে রেকর্ড সংক্রমণ প্রশংসা পাচ্ছে অপূর্ব-মেহজাবিনের ‘অন্য এক প্রেম’ কিছু বিদেশি গণমাধ্যম দেশ ও সরকারের বিরুদ্ধে ভুল সংবাদ দেয় আশাশুনিতে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ সদস্য সাজাপ্রাপ্ত আসামী দেলোয়ার গ্রেপ্তার দেবহাটায় নেট-পাটা অপসারণে ইউএনও’র অভিযান, জরিমানা শার্শায় এক সন্তানের জননীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ সাতক্ষীরা সামেক হাসপাতালে ইন্টার্ন ডাক্তারদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি রবি ভারী বর্ষণে প্লাবিত জনগণের পাশে সোহেল বাল্য বিবাহ; ছেলে, বর-কনের অভিভাবক ও পুরোহিতকে জরিমানা কপিলমুনিতে জনসম্মুখে টানানো হলো ওয়ারেন্টভুক্ত আসামীদের নামের তালিকা

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের চাকুরী নয় একটি বাড়ির  জন্য আকুতি

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১০০ বার পড়া হয়েছে
মো. হাসান আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি : রত্নাই নদীর পাশে ওয়াপদার বাঁধ (পানি উন্নয়ন বোর্ড) রাস্তার  উপর দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছেন এক মুক্তিযোদ্ধা’র পরিবার। লালমনিরহাট সদর উপজেলার  কুলাঘাট ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের বাড়ীবনমালি গ্রামের বীবমুক্তিযোদ্ধা  বিমল চন্দ্র বর্মন  এর পরিবারটি খুব অবহেলায় ও কষ্টে দিন  অতিবাহিত করছে। জানতে চাইলে  মুক্তিযোদ্ধা বিমল চন্দ্র বর্মন  এর স্ত্রী রাধা রাণী(৭৫)  জানান, আমার স্বামী দীর্ঘদিন অসুস্থ হয়ে পরে  থাকার  পর এক বছর আগে মারা জান। ওনাকে রাষ্ট্রীয়  মরজাদায়  দাহ  করা হয়। আমাদের কোন জমি জমা নেই সেই কারনে দীর্ঘদিন থেকে রাস্তার ধারে কষ্ট করে দুই ছেলে, এক মেয়ে ও নাতি- নাতনিদের নিয়ে বসবাস করছি।  সরকারের কাছে দাবি করে তিনি আরও বলেন, মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেন আমাদের পরিবারটির দিকে একটু সুদৃষ্টি দেন। মুক্তিযোদ্ধা বিমল চন্দ্র বর্মন এর ছোট ভাই জয়কান্ত চন্দ্র বর্মন বলেন, ভাই দেশের জন্য  যুদ্ধ করেছে, এক সময়  আমাদের যে সামান্য জমি ছিলো তাও নদীর গর্ভে চলে গেছে। তার পর থেকে ভাই  রাস্তার উপর(পানি উন্নয়ন বোর্ড এর বাঁধ) এ বসবাস করতে থাকেন। আর আমি অন্যোর  বাঁশ ঝারে বসবাস করে  আসছি। শুনতেছি  যে সরকার মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীনদের  বাড়ি করে  দিচ্ছে আমাদেরকে  যদি সেই সুবিধা দিতো তাহলে দুঃখ ঘুচে যেতো।
মুক্তি যোদ্ধার ছেলে বিমল চন্দ্র বর্মন বলেন,  ছোট বেলায় দেখতাম বাবা নদী ভাঙ্গনে সব নিঃস্ব হয়ে ওয়াপদার  বাঁধে  এসে ঘর তোলে। তখন থেকে কোন রকম ভাবে পরিবার পরিজন নিয়ে জীবন যাপন করে আসছি আমরা। অভাবের কারণে বেশি লেখা পড়া করতে পারিনি। তাই সরকারি চাকুরি চাইনা চাই মাথা ঘোচানোর জন্য সঠিক ঠিকানা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ