1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১১:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
আবারো জীবনের নতুন অধ্যায় শুরু, আশীর্বাদ চাইলেন শ্রাবন্তী হাট-বাজারের দরপত্র দাখিলে অনিয়ম, রাতেও সিডিউল বিক্রির অভিযোগ আশাশুনিতে থানা পুলিশের অভিযানে গরু ও গাড়িসহ দুই চোর গ্রেফতার আশাশুনিতে আইন-শৃঙ্খলা বিষয় নিয়ে গ্রাম পুলিশদের সাথে জরুরী আলোচনা শার্শায় সন্ত্রাসী হামলায় ৪ জন ছাত্র আহত পাইকগাছায় নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধে পল্লীসমাজের উঠান বৈঠক পাইকগাছা পৌরসভার নতুন ওয়াটার রির্জারভার এর নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ডিজিটাল ভূমি ব্যবস্থাপনায় বিশেষ অবদান রাখায় সম্মাননা পেলেন ইউএনও খালিদ হোসেন অপ্রচলিত কৃষি পণ্য উৎপাদন ও রপ্তানিতে প্যাকেজিং বিষয়ক কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রতিবন্ধী আল-আমিনকে আর্থিক সহায়তা দিলেন ইউএনও খালিদ হোসেন

তামিমের সঙ্গী কে, এখনও অনিশ্চিত

  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৪৯ বার পড়া হয়েছে

স্পোর্টস ডেস্ক : স্কোয়াড যেমনই হোক বা যতজনেরই হোক, বাংলাদেশ দলের টেস্ট একাদশে কয়েকটি নাম অটোমেটিক চয়েজ। অধিনায়ক মুমিনুল হক, ওপেনার তামিম ইকবাল, অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান, ডানহাতি ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম, উইকেটরক্ষক লিটন দাস নিশ্চিতভাবেই খেলবেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের প্রথম ম্যাচে। এর বাইরে নাজমুল হোসেন শান্ত, তাইজুল ইসলাম, মেহেদি হাসান মিরাজদের জায়গাও প্রায় নিশ্চিত। প্রশ্ন থেকে যায়, সাইফ হাসান নাকি সাদমান ইসলাম- তামিমের উদ্বোধনী সঙ্গী হবেন কে? দলে পেসার থাকবেন কতজন? ম্যাচের আগেরদিন এ দুই প্রশ্নের জবাব দিতে চাননি টাইগার অধিনায়ক মুমিনুল হক। তিনি বরং এ দু’টি জায়গা নিয়ে আগ্রহটা রেখে দিলেন ম্যাচের দিন সকাল পর্যন্ত। দলে পেসার সংখ্যা কয়জন হবে? দুই পেসারের সঙ্গে তিন স্পিনার নাকি চার স্পিনারের সঙ্গে একজন মাত্র পেসার? এ সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বুধবার ম্যাচের দিন সকালে। একইসঙ্গে তামিমের উদ্বোধনী সঙ্গীর বিষয়টিও সকালেই চূড়ান্ত হবে বলে জানালেন মুমিনুল। মঙ্গলবার দুপুরে ভার্চুয়াল প্রেস কনফারেন্সে টাইগার অধিনায়কের ভাষ্য, ‘কন্ডিশন বুঝে, সকালে উইকেট দেখে শেষ মুহূর্তে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে, তিন পেসার নাকি দুই পেসার খেলানো হবে। এখন কিছু বলা আসলে কঠিন। দ্বিতীয় যেটা, (তামিমের) পার্টনার কে হবে সেটাও সকালে সিদ্ধান্ত নেবো আমরা।’মঙ্গলবার সকালে অনুশীলনে এসেই উইকেটের আশপাশে কিছুটা সময় কাটান মুমিনুল, হাত দিয়ে বোঝার চেষ্টা করেন কেমন হতে পারে উইকেটের আচরণ। এর আগে দলের হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো, পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসন, তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানরাও দেখে নেন উইকেটের চিত্র। তবে উইকেট নিয়ে নিজের বা দলের মূল্যায়ন জানাতে চাননি টাইগার অধিনায়ক। তার ভাষ্য, ‘দেখেন উইকেট নিয়ে আসলে কিছু বলা কঠিন। এটা সবসময় নির্ভর করে আমাদের স্ট্রেন্থের ওপর। আমরা কেমন স্ট্রেন্থ আছি, কন্ডিশন কেমন? উইকেটটা ওভাবে হবে, আমরাও কন্ডিশন বুঝে ওভাবে টিম সাজাবো।’ বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিমের উদ্বোধনী সঙ্গীর ব্যাপারে কিছু খোলাসা না করলেও, টাইগারদের ম্যাচ পূর্ববর্তী অনুশীলন থেকেই আভাস পাওয়া গেছে কে খেলবেন সিরিজের প্রথম ম্যাচে। সকালে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দলের অনুশীলনের শুরুতেই ছিল ফিটনেস ট্রেনিং। পরে গা গরমের ফুটবল ম্যাচ খেলেন টাইগার ক্রিকেটাররা। পরে শুরু হয় স্কিল ট্রেনিং। মাঠের মাঝখানে প্রায় সবাই মিলে শুরু করেন ফিল্ডিং অনুশীলন। এরপর সবার আগে নেটে প্র্যাকটিস শুরু করেন মুশফিকুর রহীম। মিনিট দশেক তার ঠিক পাশের নেটে ব্যাটিং শুরু করেন বাঁ-হাতি ওপেনিং ব্যাটসম্যান সাদমান ইসলাম। যিনি নেটে ছিলেন প্রায় এক ঘণ্টার বেশি সময়। সাদমান যখন নেটে ব্যাটিং করছিলেন, তখন তার বিপক্ষে মেহেদি হাসান মিরাজের সঙ্গে অফস্পিনার হিসেবে বোলিং করেন ডানহাতি ওপেনিং ব্যাটসম্যান সাইফ হাসান। এতেই ধারণা পাওয়া যায়, বুধবারের ম্যাচে তামিমের সঙ্গী হতে চলেছেন সাদমান। কেননা লম্বাসময় তিনিই ছিলেন নেটে, খেলেছেন মেহেদি মিরাজ, তাসকিন আহমেদদের বোলিং, থ্রো ডাউন করেছেন ব্যাটিং কোচ জন লুইসও। কিছু শট ভুল খেলায় ব্যাটিং কোচ সেগুলো শুধরেও দেন সাদমানকা। তবে তামিমের ওপেনিং পার্টনার হিসেবে আরেক প্রার্থী সাইফ যে শুধু বোলিং করেছেন, এমন নয়- তিনিও পরে নেটে ব্যাটিং অনুশীলন করেছেন। তবে সেটি যে নিছক রুটিন নেট সেশনের অংশ- তা অনুশীলনের ধরন দেখেই বোঝা যাচ্ছিল। তাই বুধবারের ম্যাচে তামিমের সঙ্গে সাদমানকেই দেখা গেলে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। যদিও বাংলাদেশের হয়ে সবশেষ দুই টেস্টে ইনিংসের সূচনা করেছিলেন সাইফ। তিনি মূলতঃ সুযোগটা পেয়েছিলেন সাদমানের ইনজুরির কারণে। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানে এক ম্যাচ ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘরের মাঠে এক ম্যাচ খেলেন সাইফ। এই দুই ম্যাচের তিন ইনিংস মিলে মাত্র ৮ রান করতে পেরেছেন তিনি। এ ছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচেও সাইফের চেয়ে সাবলীল ছিলেন সাদমান। ম্যাচের দুই ইনিংসে একবারও লম্বা সময় উইকেটে থাকতে পারেননি সাইফ, আউট হয়েছেন যথাক্রমে ৩৩ বলে ১৫ ও ৩৩ বলে ৭ রান করে। অন্যদিকে প্রথম ইনিংসে ৮২ বলে ২২ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৮১ বলে ২১ রান করে অপরাজিত ছিলেন সাদমান। এদিকে দলের অনুশীলন দেখে তামিমের উদ্বোধনী সঙ্গীর বিষয়ে আভাস মিললেও, পেস বোলারদের ব্যাপারে কিছুই বোঝার সুযোগ ছিল না। কেননা গা গরমের ফুটবল এবং ফিল্ডিং সেশনের পর কোনো পেসারকেই দেখা যায়নি অনুশীলনে। এক পাশের নেটে তাসকিন বোলিং করেছেন কিছুক্ষণ। কিন্তু এবাদত হোসেন, আবু জায়েদ রাহী, হাসান মাহমুদরা নেটে বোলিং করেননি একদমই। ফলে পেসারদের বিষয়ে জানার জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে ম্যাচের দিন সকাল পর্যন্তই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ