1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৪২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শার্শায় নিখোঁজের এক দিন পর বেতনা নদী থেকে নাসির মোল্লার মরদেহ উদ্ধার মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিগাঁথা ৬ ডিসেম্বর: ঐতিহাসিক দেবহাটা মুক্ত দিবস আছাদুল হককে জেলা থ্রি-হুইলার মালিক সমিতির ফুলেল শুভেচ্ছা দেবহাটায় ভূমিহীন কৃষক নেতা সাইফুল্লাহ লস্করের মৃত্যু বার্ষিকী পালিত বীর মুক্তিযোদ্ধা এমপি রবিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন চেয়ারম্যান আজমল উদ্দীন নরসিংদী রায়পুরায় ট্রেনের ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে গেলো ইজিবাইক, চালক নিহত পাইকগাছায় সামাজিক জবাবদিহিতা মূল স্রোতধারাকরণ বিষয়ক অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত পাইকগাছায় অটো রাইসমিলে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড; কোটি টাকার ক্ষতি সদর উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মনি’র ৮৩তম জন্মবার্ষিকী পালন সাতক্ষীরায় আল-আরাফাহ্ধসঢ়; ইসলামী ব্যাংক লি: এর উদ্যোগে মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসে অর্থায়ণ প্রতিরোধ বিষয়ক দিন ব্যাপি প্রশিক্ষণ কর্মশালা

বিক্রি হলো ৬ লাখে জালে আটকে পড়া একঝাঁক ভোলা মাছ

  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৫২ বার পড়া হয়েছে

কাজী আবু সাকিব : সুন্দরবনের রায়মঙ্গল নদীতে রফিকুল ইসলাম নামের এক জেলের জালে ধরা পড়েছে ১২৬টি ভোলা মাছ। প্রত্যেকটি মাছের ওজন ৭-২০ কেজি পর্যন্ত। ৫৯০ টাকা কেজি দরে মাছগুলো বিক্রি করে রফিকুল ইসলাম পেয়েছেন পাঁচ লাখ ৯০ হাজার টাকা। এতেই ভাগ্য খুলেছে এই মৎস্যজীবীর। মৎস্যজীবী রফিকুল ইসলাম সাতক্ষীরার শ্যামনগরের রমজাননগর ইউনিয়নের টেংরাখালি গ্রামের বাসিন্দা। রফিকুল ইসলাম জানান, সুন্দরবন সংলগ্ন রায়মঙ্গল নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে নদীতে জোয়ার আসে। সেই জোয়ারে ফেলা জালে ধরা পড়ে একঝাঁক লাউভোলা মাছ। ১২৬টি মাছের ওজন হয়েছে প্রায় এক হাজার ৫১ কেজি। তিনি বলেন, শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) পাঁচ লাখ ৯০ হাজার টাকায় মাছগুলো বিক্রি করেছি। একই এলাকার মাছ ব্যবসায়ী নূর হোসেন গাজী মাছগুলো কিনেছেন। শ্যামনগর বংশীপুর সোনার মোড় এলাকার মদিনা ফিশের সত্ত্বাধিকারী হারুনুর রশিদ বলেন, মাছ ব্যবসায়ী নুর হোসেন গাজী আমার মৎস্যসেটে মাছগুলো ছয় লাখ ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে গেছেন। সামুদ্রিক মাছ হিসেবে ভোলামাছ খেতে বেশ সুস্বাদু। স্বাদের পাশাপাশি এই মাছের চাহিদা ও দাম চড়া হওয়ার মূল কারণ হলো এ মাছের ফুলকা ভারতসহ বিভিন্ন দেশে রফতানি হয়। গ্রেড অনুযায়ী প্রতি কেজি ফুলকার মূল্য ২৫-৩০ হাজার টাকা। এ ফুলকা দিয়ে প্রসাধনী ও মূল্যবান ওষুধ তৈরি হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ