1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
খালের পানি নিয়ে দ্বন্দ্ব: সালিশে সংঘর্ষে বৃদ্ধ নিহত সাতক্ষীরায় এমপি রবির পক্ষ থেকে শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ সাতক্ষীরায় এমপি রবির পক্ষ থেকে প্রতিবন্ধী মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ বাসাইলে সরকারি বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে বিজ্ঞান মেলা টাঙ্গাইলে সাবেক ইউপি সদস্য সহ দু’মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার সাতক্ষীরা সিটি কলেজ গর্ভণিং বডির নতুন কমিটির প্রথম সভা অনুষ্ঠিত নওয়াপাড়া ইউপি’র নব-নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের সংবর্ধনা ও অভিষেক টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে তিন ইটভাটা গুঁড়িয়ে দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত টাঙ্গাইলে ২৯ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত দেবহাটায় ওয়ান শার্টার গান, ৯ রাউন্ড গুলি ও ৪শ পিছ ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার

মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলার আসামিদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ ও সমাবেশ

  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৩২৮ বার পড়া হয়েছে
জাহাঙ্গীর আলম, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : বঙ্গবন্ধু হত্যার অন্যতম প্রতিবাদকারী, টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ও বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (১৮ জানুয়ারি) দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে স্থানীয় শহীদ মিনারে ফারুক আহমদের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে কেন্দ্রীয় গোরস্থানে তার কবর জিয়ারত ও পুস্পস্তবক অর্পন করেন। বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন টাঙ্গাইল-২ (ভূঞাপুর-গোপালপুর) আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদের স্ত্রী নাহার আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জামিলুর রহমান মিরন, শহর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বড়মনি প্রমুখ। এ সময় জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাতিনুজ্জামান খান সুখন, জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক তানভীরুল ইসলাম হিমেল, যুবলীগের তারেক পটন, শহর যুবলীগের আহবায়ক নূর মোহাম্মদ মানিক সিকদারসহ ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখ্য, বিগত ২০১৩ সালের (১৮ জানুয়ারি) রাতে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমদের গুলিবিদ্ধ লাশ শহরের কলেজপাড়া এলাকার নিজ বাসার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার তিন দিন পর তার স্ত্রী নাহার আহমেদ বাদি হয়ে সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে গোয়েন্দা পুলিশ রাজা ও মোহাম্মদ আলীর নামক দুইজনকে বিগত ২০১৪ সালে গ্রেফতার করে। ওই দুই আসামির জবানবন্দিতে এই হত্যার সাথে টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল) আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা এবং তার অপর তিন ভাই পৌরসভার তৎকালীন মেয়র শহিদুর রহমান খান মুক্তি, ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাকন ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পার জড়িত থাকার বিষয়টি বের হয়ে আসে। তার পরেই আমানুর রহমান খান রানা ও তার ভাইয়েরা আত্মগোপনে চলে যান

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ