1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:৪৩ পূর্বাহ্ন

তালা উপজেলার দখলে জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে উপদেষ্টাসহ ২০ টি পদ

  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে

তালা প্রতিনিধি : দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের ১০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষনা করেছেন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ ক্রমে গতকাল শুত্রবার জেলা আওয়ামীলীগের কমিটি ঘোষনা করেন। জেলা আওয়ামীলীগের কমিটিতে তালা উপজেলার প্রায় ২০ জন নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন পদে স্থান করে নিয়েছেন বলে জানাগেছে।তালা উপজেলা হতে উপদেষ্টা সহ গুরুত্বপুর্ণ পদে স্থান পাওয়া ব্যক্তিরা হলেন যথাক্রমে উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য বিশ্বজিৎ সাধু, বীরমুক্তিযোদ্ধা সরদার সুজাত আলি, বীরমুক্তিযোদ্ধা মাষ্টার ময়নুল ইসলাম, বীরমুক্তিযোদ্ধা মোড়র আঃ রশিদ, বীরমুক্তিযোদ্ধা এম এম ফজলুল হক, বিশ্বাস জাহাঙ্গীর হোসেন। ৭৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সহ: সভাপতি পদে শেখ সাহিদ উদ্দীন, সি:যুগ্ম সাধারন সম্পাদক পদে সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্র,সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান গোলদার,প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে এ্যাড. অনিত মুখার্জি,শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক পদে লায়লা পারভিন সেঁজুতি , উপ-দপ্তর সম্পাদক পদে শেখ আসাদুজ্জামান লিটু, উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে বাবলু, কার্যকারী সদস্য পদে বীরমুক্তিযোদ্ধা ইজ্ঞিঃ শেখ মুজিবর রহমান, সরদার ফিরোজ আহমেদ, শেখ নুরুল ইসলাম, ঘোষ সনৎ কুমার, মীর জাকির হোসেন, মিসেস মাহফুজা রুবি,নাজমুন নাহার মুন্নি। নবগঠিত কমিটির সহ:সভাপতি পদে শেখ সাহিদ উদ্দীন, সাতক্ষীরা জেলার ছাত্রলীগের ও যুবলীগের সভাপতি ছিলেন। সাহিদের জন্মস্থান তালা উপজেলায় হলেও তিনি সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ভোটার। যুগ্ম সাধারন সম্পাদক পদে সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্র, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ কামাল বখ্ত, ১৯৭০ সালের তৎকালীন পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে জাতীয় পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ৬ দফা আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ সহ তৎকালীন সকল রাজনৈতিক কর্মকান্ডে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। সৈয়দ কামাল বখ্ত সাকী কয়েক বার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তারই বড় পুত্র সৈয়দ ফিরোজ কামাল শুভ্র। সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান গোলদার, তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য ছিলেন। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে এ্যাড. অনিত মুখার্জি, তিনি তালা উপজেলা মাগুরা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। শিক্ষা ও মানবসম্পদ সম্পাদক পদে লায়লা পারভিন সেঁজুতি,তিনি বীরমুক্তিযোদ্ধা স.ম আলাউদ্দীনের কন্যা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড সাতক্ষীরা জেলা শাখার সদস্য সচিব এবং দৈনিক পত্রদুত পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক। কার্যকারী সদস্য পদে বীরমুক্তিযোদ্ধা ইজ্ঞিঃ শেখ মুজিবর রহমান, তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি এবং সাবেক সংসদ সদস্য। সরদার ফিরোজ আহমেদ,তিনি গত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। শেখ নুরুল ইসলাম, তিনি তালা উপজেলা আওয়ামীলীগের বারবার নির্বাচিত সভাপতি ও আওয়ামীলীগ মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থী ছিলেন। তবে কেন্দ্রীয় নির্দেশে প্রত্যাহার করেন। ঘোষ সনৎ কুমার, তিনি উপজেলা আওয়ামীগের বারবার নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও ৩ বারের উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। মীর জাকির হোসেন, তিনি তালা সরকারী কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি,উপজেলা ছাত্রলীগের ২ বারের সাবেক সভাপতি, উপজেলা যুবলীগের ২ বারের সাবেক সভাপতি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বর্তমানে উপজেলা আওয়ামীলীগের সি:যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য। মিসেস মাহফুজা রুবি,তিনি বর্তমানে জেলা পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য।নাজমুন নাহার মুন্নি, তিনি তালা উপজেলা সন্তান হলেও বর্তমানে সাতক্ষীরা সদর উপেজেলার ভোটার। উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য বিশ্বজিৎ সাধু, তিনি সাতক্ষীর জেলা কৃষকলীগের নেতা।বীরমুক্তিযোদ্ধা সরদার সুজাত আলি,তিনি প্রায় ১৪বছর জালালপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠা কালীন সময় থেকেই আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। ৭১এর মুক্তিযুদ্ধের সময় খেশরা ইউনিয়নের বাতুয়াডাঙ্গা ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার ছিলেন। ৭১ সালে পাইকগাছা রাজাকার ক্যাম্প আক্রমনে নেতৃত্ব দেন। শালিখা ডিগ্রী কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। বীর মুক্তিযোদ্ধা মাষ্টার ময়নুল ইসলাম, তিনি একজন বরেণ্য মুক্তিযোদ্ধা।বীরমুক্তিযোদ্ধা মোড়ল আঃ রশিদ,তিনি বরেণ্য যুদ্ধগত মুক্তিযোদ্ধা ও জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন।বীরমুক্তিযোদ্ধা এম এম ফজলুল হক, তিনি খেশরা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। উলেখ্য,২০১৯ সালের ১২ ডিসেম্বর সাতক্ষীরার শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে অনুষ্ঠিত কাউন্সিলের দ্বিতীয় অধিবেশনে মুনসুর আহমেদকে সভাপতি ও নজরুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ