1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০৮:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দুই সপ্তাহের মধ্যে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের নির্দেশ মন্ত্রীর ৬ কোটিতে ফ্ল্যাট কিনেছেন, দিশার আছে দামি গাড়ি ও ব্যাগের কালেকশন ইসরায়েলি তেল ট্যাঙ্কারে হামলার দায় অস্বীকার ইরানের করোনাকালীন সময়ে সাংবাদিকদের সরকারের প্রণোদনা দিলেন ইউএনও তালায় জলাবদ্ধতা নিরসনে ও জনদূর্ভোগ লাঘবে অবৈধ নেট-পাটা অপসারণ বিশিষ্ট চাউল ব্যবসায়ী বাবুরালী সানার স্বরনে মাঝিয়াড়া ব্যবসায়ীদের শোক প্রকাশ সাংবাদিক আব্দুল আজিজ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত জেলা নাগরিক অধিকার ও উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির স্মারকলিপি প্রদান নরসিংদীতে রিক্সাচালকের করুণ কাহিনী শুনে আর্থিক অনুদান প্রদান দেবহাটায় মোবাইল কোর্টের অভিযানে পুশকৃত বাগদা চিংড়ি জব্দ, জরিমানা আদায়

রাজাকার পরিবারের কাউকে আ.লীগের মনোনয়ন না দেয়ার দাবি

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৯০ বার পড়া হয়েছে

ন্যাশনাল ডেস্ক :  স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার, আলবদর, আলশামস পরিবারের কোনো সদস্যকে আওয়ামী লীগের কোনো কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত না করা এবং জনপ্রতিনিধিত্বের মনোনয়ন না দেয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশে সচেতন মুক্তিযোদ্ধা ও প্রজন্ম পরিষদ।বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে বাংলাদেশ সচেতন মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম পরিষদের ব্যানারে এই দাবি জানানো হয়।পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী এই রাজাকার, আলবদর, আলশামস পরিবারের কোনো সদস্যকে দলীয় মনোনয়ন দিলে আমাদের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অসম্মান করা হবে। দলের পরিশ্রম বিফলে যাবে। বঙ্গবন্ধুর সব অর্জন নষ্ট হবে। আর যদি তাদের কাউকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয় তাহলে এর প্রতিবাদে আমরা সচেতন বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ রাজপথে নামতে বাধ্য হবো।এ সময় বাংলাদেশ সচেতন মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম পরিষদ প্রধানমন্ত্রীর কাছে কিছু দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো- স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার, আলবদর, আলশামস পরিবারের কোনো সদস্যকে বঙ্গবন্ধুর সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন না দেয়া;বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কোনো কমিটিতে বাংলাদেশের কোথায় স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার, আলবদর, আলশামস পরিবারের কোনো সদস্যকে দলীয় পদবি না দেয়া এবং আর বর্তমানে যারা পদবি নিয়ে আছেন অনতিবিলম্বে তাদেরকে বহিষ্কার করা;বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা ২০ হাজার টাকা, মুক্তিযোদ্ধা সংসদীয় কমিটির সিদ্ধান্ত নেয়ার পরও আজ পর্যন্ত বীর মুক্তিযোদ্ধারা ২০ হাজার টাকা পাচ্ছেন না;স্বাধীনতার পরে যত সরকার আসছে শুধু বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। তাই বৃদ্ধ বয়সে মুক্তিযোদ্ধাদেরকে কোনো হয়রানি না করা এবং এ জাতীয় হয়রানি অনতিবিলম্বে বন্ধ করা; ১৫ লাখ তাকাসুরবিহীন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহনির্মাণে ঋণ দেয়া নিশ্চিত করা; প্রত্যেক জেলায় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গণকবর সংস্কার ও সংরক্ষিত রাখা এবং। বঙ্গবন্ধুর বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মদের দেয়া ৩০ শতাংশ কোটা বন্ধ করা হয়েছে, তা পুনরায় চালু করা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ