1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ভারতে ১০০ কোটি মানুষকে টিকা : মোদিকে হাসিনার অভিনন্দন পরীমণি: স্কুলের মেধাবী ছাত্রী থেকে আলোচিত নায়িকা ক্যাচ মিস আর বেহিসেবি বোলিংয়ে হার দেবহাটায় চালককে অজ্ঞান করে ইজিবাইক ছিনতাই, গ্রেফতার-৩ জেলা প্রশাসকের সাথে সাতক্ষীরা সাইবার-ক্রাইম অ্যালার্ট টিমের সৌজন্য সাক্ষাৎ বাংলাদেশ অবসর প্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী কল্যাণ সমিতি সাতক্ষীরা জেলা শাখার নির্বাহী কমিটির সভা ইসলামী ফাউন্ডেশনের উপপরিচালকের সাথে জেলা নাগরিক অধিকার ও উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির মতবিনিময় টাঙ্গাইল সদর উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত শার্শায় নৌকার মনোনয়ন জেরে হামলা: ইউপি সদস্যসহ আহত ২০ আ.লীগ প্রার্থীর নির্বাচনী জনসভা

বিদ্রোহীদের মদদ দিলে ব্যবস্থা: ওবায়দুল কাদের

  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১১৫ বার পড়া হয়েছে

ন্যাশনাল ডেস্ক : আওয়ামী লীগের কোনও দায়িত্বশীল নেতা বা জনপ্রতিনিধি বিদ্রোহী প্রার্থীদের মদদ দিলে সংগঠন বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অপরাধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘অনেকের বিরেুদ্ধে এমন অভিযোগ রয়েছে। তাদেরকে বিদ্রোহীদের সমর্থন ও মদদ দেওয়া থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হলো।’বৃহস্পতিবার (৭ জানুয়ারি) ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবনে নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। দলীয় মনোনয়ন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দল। যে কোনও নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার মতো একাধিক যোগ্য প্রার্থী থাকা স্বাভাবিক। তবে মনোনয়ন বঞ্চিতদের যোগ্যতা অনুযায়ী সাংগঠনিকভাবে মূল্যায়নের সুযোগ রয়েছে। কিন্তু দলের শৃঙ্খলা ও স্বার্থ পরিপন্থী কর্মকাণ্ড করা যাবে না। কেউ বিদ্রোহী হয়ে নির্বাচন করবেন না, আর দায়িত্বশীল নেতা এবং জনপ্রতিনিধিরাও তাদের সমর্থন বা মদদ দেবেন না। কেননা স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থীদের বিরুদ্ধে যারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন তাদের আগামীতে আর মনোনয়ন দেওয়া হবে না বলে দল থেকে সিদ্ধান্ত হয়েছে।’আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘প্রতিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত করার জন্য শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দলের সিনিয়র নেতাদের সমন্বয়ে পৃথক পৃথক মনোনয়ন বোর্ড রয়েছে। একটি স্থানীয় সরকার, অপরটি সংসদীয়। সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তৃণমূল নেতাদের মতামত, সংশ্লিষ্ট জেলা উপজেলা পর্যায়ের নেতাদের সুপারিশ, সরকারি-বেসরকারি এবং দলীয় সার্ভে রিপোর্টের পাশাপাশি প্রার্থীদের যোগ্যতা, ত্যাগ ও জনপ্রিয়তা বিবেচনা করে দলীয় মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয়।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ