1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেবহাটার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসারের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যানের শুভেচ্ছা বিনিময় সাতক্ষীরা পৌর আ.লীগ ৪নং ওয়ার্ড শাখার ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল ২০২১ অনুষ্ঠিত জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানে দেবহাটায় মানববন্ধন এমপি বাবু’র সাথে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানদের শুভেচ্ছা বিনিময় পাইকগাছার ব্যবসায়ী বিধান এর এক সপ্তাহেও খোঁজ মেলেনি ১৫ দফা দাবিতে চট্টগ্রাম বন্দরে চলছে ধর্মঘট সাতক্ষীরায় ১০ ইউপিতে নৌকা, ১১টিতে বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী পাইকগাছা পৌরসভা এসডিজি ফোরামের সভা অনুষ্ঠিত পাইকগাছার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন পাইকগাছার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ, সার ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান

সাতক্ষীরা পৌর নির্বাচন : ভালোবাসা দিবসে ইভিএম এ ভোট দিবেন ভোটাররা

  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৫৬ বার পড়া হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট : চতুর্থ ধাপে ৫৬ টি পৌরসভায় ভোট গ্রহণ আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। এসব পৌরসভায় মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ১৭ জানুয়ারি, বাছাই ১৯ জানুয়ারি আর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষদিন ২৬ জানুয়ারি। রোববার (৩ জানুয়ারি) এই তথ্য জানান নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। তিনি বলেন, এসব পৌরসভার ৩১টিতে ইভিএমের মাধ্যমে আর ২৫টিতে ব্যালট পেপারে মাধ্যমে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে, তৃতীয় ধাপের ৬৪ পৌরসভার ভোট গ্রহণ ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে। এসব পৌরসভায় মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১০ জানুয়ারি। এ বিষয়ে ইসির সিনিয়র সচিব বলেন, এসব পৌরসভায় সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। সবগুলো পৌরসভায় ব্যালটের মাধ্যমে ভোট হবে।ইসির তফসিল অনুয়ায়ী প্রথম ধাপে ২৫টি পৌরসভায় ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় ধাপে ৬১ পৌরসভায় আগামী ১৬ জানুয়ারি ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ইভিএমের মাধ্যমে ২৯টি পৌরসভায় এবং ব্যালটের মাধ্যমে ৩২টি পৌরসভায় ভোট হবে। কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আইন অনুযায়ী পৌরসভায় নির্বাচিত মেয়র-কাউন্সিলরদের মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্বে ৯০ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এক্ষেত্রে আগামী ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি প্রায় ২৫০ এর বেশি পৌরসভার মেয়র-কাউন্সিলরের মেয়াদ শেষ হচ্ছে।

এদিকে প্রার্থীদের প্রচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে নির্বাচনি মাঠ। নির্বাচন সামনে রেখে মেয়র পদে প্রার্থিতার ইচ্ছা প্রকাশ করে সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচারণায় নেমেছেন। ব্যানার-ফেস্টুনের পাশাপাশি স্থানীয় পত্রপত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রার্থিতার ঘোষণা দিয়েছেন অনেক প্রার্থী। পৌর এলাকায় জনসংযোগ শুরু করেছেন কেউ কেউ। তবে অনেক প্রার্থীরা এখনও সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দিতার লক্ষ্যে তৎপর হয়ে উঠেছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের একাধিক নেতা। সব মিলিয়ে আলোচনায় রয়েছেন সম্ভাব্য একাধিক প্রার্থী। এখন পর্যন্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে, বর্তমান পৌর মেয়র ও জেলা বিএনপির সাবেক সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তাসকিন আহমেদ চিশতী, প্রয়াত পৌরসভা চেয়ারম্যান শেখ আশরাফুল হকের ছেলে পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ নাসেরুল হক, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন, পৌর কাউন্সিলর ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জ্যোন্সা আরা, জেলা যুব দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নাসিম ফারুক খান মিঠু, জাতীয় পার্টির জেলা সভাপতি শেখ আজাহার হোসেন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এজাজ আহমেদ স্বপন, জেলা পরিষদ সদস্য আমিনুর রহমান বাবুর। আওয়ামীলীগ নেতারা বলছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেই নির্বাচনে অংশ নেব। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে যাওয়ার কোন ইচ্ছা নেই। প্রয়োজনে দল যাকে মনোনয়ন দেবে তার পক্ষে মাঠে থেকে কাজ করব।সম্ভাব্য প্রার্থীর মধ্যে বিএনপি নেতা ও বর্তমান মেয়র তাসকিন আহমেদ চিশতী গত নির্বাচনে প্রথমবারের মত মেয়র নির্বাচিত হন। সাতক্ষীরা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি নাসিম ফারুক খান মিঠু বলেন, আমি গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছিলাম। অল্প ভোটের ব্যবধানে হেরেছি। আধুনিক সাতক্ষীরা পৌরসভা গড়তে এবারও আমি সতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেব। ইতোমধ্যে প্রচার প্রচারণা শুরু করেছি। আমি বর্তমানে কোন রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত নেই।

জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি শেখ আজাহার হোসেন বলেন, জাতীয় পার্টির হয়ে আমি গত নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। এবারও নির্বাচনে অংশ নিতে স্থানীয় নেতা কর্মীদের চাপ আছে। দলীয় হাইকমান্ড থেকে নির্দেশনা আসলে দলের স্বার্থে প্রার্থী হতে পারি। নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিষয়ে পৌর কাউন্সিলর জ্যোন্সা আরা বলেন, আমি মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য দলের কাছে মনোনয়ন চাইব। না পেলে আবারও কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করব। এ বিষয়ে জেলা পরিষদ সদস্য সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সৈয়দ আমিনুর রহমান বাবু বলেন, আমি দলের কাছে মনোনয়ন চাইব। দল যদি মনোনয়ন দেয় তাহলে নির্বাচনে অংশ নেব। উল্লেখ্য, সাতক্ষীরা পৌরসভা নির্বাচনে আলোচনায় আছেন ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী জনপ্রিয়তায় এগিয়ে আছেন আব্দুল্রাহ আল মামুন। শহরের চায়ের দোকান থেকে শুরু করে মানুষের মুখে মুখে সাতক্ষীরা পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ