1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দেবহাটার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসারের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যানের শুভেচ্ছা বিনিময় সাতক্ষীরা পৌর আ.লীগ ৪নং ওয়ার্ড শাখার ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল ২০২১ অনুষ্ঠিত জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানে দেবহাটায় মানববন্ধন এমপি বাবু’র সাথে নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যানদের শুভেচ্ছা বিনিময় পাইকগাছার ব্যবসায়ী বিধান এর এক সপ্তাহেও খোঁজ মেলেনি ১৫ দফা দাবিতে চট্টগ্রাম বন্দরে চলছে ধর্মঘট সাতক্ষীরায় ১০ ইউপিতে নৌকা, ১১টিতে বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী পাইকগাছা পৌরসভা এসডিজি ফোরামের সভা অনুষ্ঠিত পাইকগাছার ৯টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন পাইকগাছার ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ, সার ও নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান

প্রথম সন্তান নিয়ে ফেরার পথে লাশ হলেন ফারুক

  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৭৩ বার পড়া হয়েছে

ন্যাশনাল ডেস্ক : প্রথমবার বাবা হয়ে হাসপাতাল থেকে সপরিবারে সন্তান নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে বাড়ি ফিরছিলেন নেত্রকোনার পূর্বধলা থানার ফারুক মিয়া। পরিকল্পনা ছিল বাড়ি ফিরে উৎসব করে দেয়া হবে সন্তানের আকিকা। কিন্তু সে আনন্দ মুহূর্তেই পরিণত হয়েছে বিষাদে। রাস্তাতেই সেই নবজাতকসহ বাসচাপায় নিহত হয়েছেন একই পরিবারের ছয়জন।নিহতরা হলেন-নেত্রকোনা জেলার পুর্বধলা গ্রামের পেচুয়ালেঞ্জী গ্রামের ফারুক হোসেন (৩০), তার স্ত্রী মাসুমা খাতুন (২৩), তাদের তিন দিন বয়সী নবজাতক শিশু, ফারুকের বোন জুলেখা খাতুন, ভাই নিজাম উদ্দিন (৩২) এবং ভাবি জোসনা বেগম।অটোরিকশা চালকের নাম রাকিবুল হাসান (৩০) বলে জানা গেছে। তিনি ময়মনসিংহ সদর উপজেলার চরলক্ষীপুর গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে।রোববার (৩ জানুয়ারি) দুপুরের দিকে উপজেলার নেত্রকোণা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের গাছতলা বাজার এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।নিহতের ভাতিজা ইমরান বলেন, ‘আমার চাচা (ফারুক) প্রথমবার বাবা হয়েছেন। তিনি বাড়িতে ফিরেই সন্তানের আকিকা করবেন বলেছিলেন। কিন্তু, তার সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না।’তিনি বলেন, লাশ নিয়ে আমরা বাড়িতে ফিরেছি। কখন লাশ দাফন হবে, সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে, আগামীকাল লাশ দাফন হতে পারে বলেও জানান তিনি।নিহতের চাচা আলী হোসেন জানান, ১ জানুয়ারি ময়মনসিংহ নগরীর লিবার্টি সোশ্যাল ফাউন্ডেশন হাসপাতালে সিজারের মাধ্যমে পুত্রসন্তানের জন্ম দেন মাসুমা। ওই নবজাতকে নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পরিবারের স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে।এ বিষয়ে শ্যামগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নয়ন দাস বলেন, এ ঘটনায় বাসটি জব্দ করা সম্ভব হলেও চালক পালিয়ে গেছেন। মরদেহ সন্ধ্যার আগেই স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।এ বিষয়ে তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বলেন, ‘দুপুরের দিকে নেত্রকোনা থেকে ঢাকাগামী হযরত শাহ জালাল পরিবহনের একটি বাস নেত্রকোনাগামী অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই অটোরিকশার সাতজন মারা যান। তাদের মধ্যে তিনজন পুরুষ, তিনজন নারী ও এক শিশু রয়েছেন। নিহতের মধ্যে তিন দিন বয়সী নবজাতকসহ একই পরিবারের ছয়জন রয়েছেন। তাদের লাশ হাইওয়ে থানায় রাখা হয়েছে।’প্রত্যক্ষদর্শী সোহেল মিয়া জানান, বাসটি একটি ট্রাক ওভারটেক করার সময় অটোরিকশাটি সামনে চলে আসে। অটোরিকশাটি বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে প্রায় ১০০ গজ দূরে ছেঁচড়ে আসে। আমরা দৌড়ে গিয়ে দেখি, একজন একটু নড়াচড়া করছে। আর বাকি সবাই মারা গেছেন। ওই একজনকে টেনে বের করে হাসপাতালে নেয়ার জন্য গাড়িতে তুলতে গিয়ে দেখি তিনিও মারা গেছেন।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ