1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দলীয় মনোনয়ন পাওয়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী কবির উদ্দীন তোতাকে সংবর্ধনা দেবহাটায় প্রভাবশালী কর্তৃক নির্যাতিত সংখ্যালঘু পরিবারের সংবাদ সম্মেলন দেবহাটা’য় আ.লীগের নৌকার দলীয় মনোনয়ন গ্রহণ দেবহাটায় আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আসাদুলের সংবাদ সম্মেলন যৌতুকের দাবীতে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা : শ্বশুর আটক কুলিয়ায় জনসাধারণের সাথে মতবিনিময় করলেন আছাদুল হক বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার কল্যাণ সমিতির সদস্যদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য সাইন্টিফিক সেমিনার অনুষ্ঠিত শ্যামনগরে কমিউনিটি ওয়াশ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত পাইকগাছা উপজেলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষাকল্পে জরুরী মতবিনিময় রেড ক্রিসেন্ট পক্ষ থেকে বাংলাদেশ অবসর প্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী কল্যাণ সমিতির মাঝে মাস্ক প্রদান

সড়ক দুর্ঘটনায় এক পরিবারের ৩ বোন সহ নিহত ৪

  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৬৪ বার পড়া হয়েছে

সাইফুল ইসলাম রুদ্র, নরসিংদী : নরসিংদীতে যাত্রীবাহী বাস ও প্রাইভেটকারের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাইভেটকার চালকসহ একই পরিবারের তিন বোন নিহত হয়েছেন। এছাড়া এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো একজন। শুক্রবার বিকেল চারটার দিকে জেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বেলাব উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের জঙ্গ্য়ুা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- পলাশ উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়নের চলনা গ্রামের মৃত আশাদুজ্জামানের বড় মেয়ে খাইরন নাহার (৩৫), মেঝ মেয়ে কামণা আক্তার (২৫), ছোট মেয়ে জামিয়া বেগম তৃশা (১৮) ও প্রাইভেটকার চালক নোয়াব আলী (৩০)। এছাড়া এ ঘটনায় গুরত্বর আহত হয় নিহত তিন বোনের খালাতো বোন রনা আক্তার। শনিবার সকালে নিহত তিন বোনের লাশ চরসিন্দুর ইউনিয়নের চলনা গ্রামের নিজ বাড়িতে লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সে করে পৌঁছালে সেখানে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। কান্নার রোল ওঠে পুরো গ্রামে।



বিভিন্ন বয়সী নারী-পুরষ নিহতদের বাড়িতে এসে জড়ো হয়। নিহতদের বাবা আশাদুজ্জামান মরা যান প্রায় ২০ বছর আগে।  অভাব-অনটনের সংসারে একমাত্র উপার্জনের হাতিয়ার ছিল বড় বোন খাইরন নাহার। তিনি লেখা-পড়া শেষ করে একটি হাসপাতালে নার্সের কাজ করতেন। মেঝ মেয়ে কামণাও সবে মাত্র লেখা-পড়া শেষ করে একটি চাকরি করার চেষ্টা করছিল। সবার ছোট মেয়ে জামিয়া বেগম তৃশা অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন। প্রতিবন্ধী একটি ভাই ও বৃদ্ধা মাকে নিয়ে ভালোই চলছি তাদের সংসার। ছোট বোন দুটিকে লেখা-পড়া শিখিয়ে ভালো মানুষ করার চিন্তায় এখনো বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়নি বড় বোন খাইরন নাহার। কিন্তু কে জানতো?, নতুন বছর উপলক্ষে বোনদের সাথে নিয়ে বেড়াতে যাওয়াটাই হবে জীবনের শেষ বিদায়?। বেপরোয়া বাসের ধাক্কায় নিমিষেই প্রাণ হারাতে হলো তাদের। নিহতদের মা হোসনে আরা বেগম জানান, নতুন বছর উপলক্ষে বেড়ানোর জন্য বিকেলে খালাতো বোন রনাকে নিয়ে খাইরন নাহার, কামণা ও তৃশা প্রাইভেটকার যোগে ভৈরবের উদ্দ্যেশে রওনা হয়। পরে বেলাবর জাঙ্গুয়া এলাকায় পৌঁছালে আল মোবারক পরিবহন নামে একটি যাত্রীবাহী বাসের সাথে প্রাইভেটকারটির সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারটি দুমড়েমুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলেই চালকসহ একই সঙ্গে তিন বোন নিহত হন। গুরত্বর আহত অবস্থায় রনাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।  ভৈরব হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুনুর রহমান জানান, দুর্ঘটনার পরপরই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে চারজনের লাশ উদ্ধার করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ