1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
দলীয় মনোনয়ন পাওয়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থী কবির উদ্দীন তোতাকে সংবর্ধনা দেবহাটায় প্রভাবশালী কর্তৃক নির্যাতিত সংখ্যালঘু পরিবারের সংবাদ সম্মেলন দেবহাটা’য় আ.লীগের নৌকার দলীয় মনোনয়ন গ্রহণ দেবহাটায় আ.লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আসাদুলের সংবাদ সম্মেলন যৌতুকের দাবীতে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা : শ্বশুর আটক কুলিয়ায় জনসাধারণের সাথে মতবিনিময় করলেন আছাদুল হক বাংলাদেশ গ্রাম ডাক্তার কল্যাণ সমিতির সদস্যদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য সাইন্টিফিক সেমিনার অনুষ্ঠিত শ্যামনগরে কমিউনিটি ওয়াশ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত পাইকগাছা উপজেলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষাকল্পে জরুরী মতবিনিময় রেড ক্রিসেন্ট পক্ষ থেকে বাংলাদেশ অবসর প্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী কল্যাণ সমিতির মাঝে মাস্ক প্রদান

ভালো নেই দিনাজপুরের চুন কারিগররা

  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৪৮ বার পড়া হয়েছে

মোঃ নবিউল ইসলাম দুলু, দিনাজপুর প্রতিনিধি : অনুষ্ঠান কিনবা আতিথেয়তায় প্রথমেই যে জীনিষটি কথা মাথায় আসে তা হলো পান। আর এই পান খেতে যে চুনের ব্যবহার হয় তা অতি যত্নে তৈরী করে দোকানে দোকানে পৌছে দেন চুন কারিগররা। তবে ভালো নেই এই শিল্পের সাথে জড়িত দিনাজপুরের চুন কারিগররা। তবে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন সরকারিভাবে পৃষ্টপোষোকতা পেলে আবারো ঘুরে দাড়াবে এই শিল্পের সাথে জড়িতরা। দিনাজপুর সদর উপজেলার শশরা ইউনিয়নে দুই শতাধিক চুন বানানোর কারিগর থাকার কারনে গ্রামটির নাম চুনিয়াপাড়া। তবে কালের বিবর্তনে কমতে কমতে বর্তমানে চুন শিল্পের সাথে জড়িত রয়েছে প্রায় দেড়শটি পরিবার। বিভিন্ন অ ল থেকে ঝিনুক সংগ্রহ করে আনে তারা। এই সব ঝিনুক পুড়িয়ে তৈরী করা হয় চুন। পরে বিভিন্ন হাট বাজারের দোকানে দোকানে চুন বিক্রি করা হয়।

আবার অনেকে একটু লাভের আসায় নিজেই দোকান খুলে বসে পড়েন। প্রতি মন চুন তৈরী করতে খরচ হয় ৫শ টাকা তবে প্রকার ভেদে বাজারে বিক্রি হয় ৬ থেকে ৭শ টাকা দরে। এই শিল্পে শ্রম বেশি এবং লাভ কম হওয়ায় অনেকে পূর্বপুরুষের চুন ব্যবাসা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। পরিবারের খরচ চালাতেই হিমশিম খাচ্ছে এই শিল্পের সাথে জরিত কারিগররা। শুধু তাই নয় এই রোজগারে সন্তানদের পড়াশোনাও ঠিকমত করাতে পারছেননা তারা।

তাই শিল্পটিকে বাঁচাতে সহজ সুদে ঋণের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন বলে মনে করেন সুশীল সামজের প্রতিনিধিরা। এদিকে বাংলাদেশ অর্থনিতি সমিতির কেন্দ্রিয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য অধ্যক্ষ হাবিবুল ইসলাম জানালেন, এই ঐতিহ্যবাহী শিল্পকে রক্ষার জন্য দরকার সরকারী পৃষ্টপোষোকতার। পাশাপাশি চুন তৈরীর মেশিন স্থাপনসহ আধুনিকায়নে বেসরকারী প্রতিষ্ঠান গুলোর সহযোগিতাও প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।এই গ্রামের চুন জেলার চাহিদা মিটিয়ে আশে পাশের কয়েকটি জেলায় সরবরাহ করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ