1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ১১:০১ অপরাহ্ন

ইরি-বোরো বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত লোহাগড়ার কৃষকরা

  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২০ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১২৫ বার পড়া হয়েছে

জহুরুল হক মিলু, লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি : করোনাকালীন সময়ে অতিরিক্ত খাদ্যশস্য উৎপাদনে ইরি-বোরো আবাদকে সামনে রেখে লোহাগড়া উপজেলার কৃষকরা ইরি-বোরো বীজতলা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। বীজতলা তৈরি ও বীজ ছিটানোর কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ছেন তারা।
কৃষি অধিদপ্তর স‚ত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলার জয়পুর, লোহাগড়া, মল্লিকপুর, দিঘলিয়া, লক্ষীপাশা, কাশিপুর, নোয়াগ্রাম, শালনগর, লাহুড়িয়া, ইতনা, নলদী ও কোটাকোলসহ ১২টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রায় ৫ শত ৫০ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
লোহাগড়া উপজেলা জয়পুর ইউনিয়নের মরিচ পাশা গ্রামের কৃষক আলমগীর হোসেন বলেন, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে বিস্তীর্ণ ফসলি মাঠে ইরি-বোরো আবাদের জন্য তারা বোরো বীজতলা তৈরি করছেন। ইতিমধ্যেই যে সকল জমিতে রবিশষ্য আবাদ হচ্ছে না সে সকল জমিতে প্রথম দিকে পৌষ মাসেই যাতে ধান রোপন করা যায় সে জন্য তারা দ্রæতগতিতে বীজতলায় বীজ ছিটাচ্ছেন।
লোহাগড়া ইউনিয়নের কাউড়িখোলা গ্রামের কৃষক প্রসাদ গাইন বলেন, উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার আবাদী জমির জন্য ইতিমধ্যেই প্রায় ৪০-৫০ ভাগ ইরি-বোরো বীজতলায় বীজ ছিটানো হয়েছে। যা আগামী এক মাসের মধ্যে বীজতলা থেকে বীজ তুলে জমিতে লাগানো সম্ভব হবে।
এদিকে স্থানীয় বীজ ব্যাবসায়ীরা বলেন, বর্তমানে লোহাগড়া উপজেলার হাঁট-বাজারে ইরি-বোরো বীজের বিক্রি বেড়ে গেছে। আর স্থানীয় কৃষকরা বলেন, ইরি-বোরো বীজের ম‚ল্য তাদের নাগালের মধ্যেই রয়েছে। ফলে এলাকায় ইরি-বোরো বীজের কোনো সংকট নেই।
লোহাগড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সমরেন বিশ^াস বলেন, উপজেলার ফসলি মাঠে ইরি-বোরো বীজতলা তৈরিতে কৃষকরা ব্যস্ত সময় পার করছেন। ইরি-বোরো বীজের কোনো সংকট না থাকায় এ বছর লোহাগড়া উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে ইরি-বোরো আবাদ করা সম্ভব হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ