1. mirzaromeohridoy@gmail.com : Kazi Sakib : Kazi Sakib
  2. hridoysmedia@gmail.com : news :
রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০৯:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
দুই সপ্তাহের মধ্যে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের নির্দেশ মন্ত্রীর ৬ কোটিতে ফ্ল্যাট কিনেছেন, দিশার আছে দামি গাড়ি ও ব্যাগের কালেকশন ইসরায়েলি তেল ট্যাঙ্কারে হামলার দায় অস্বীকার ইরানের করোনাকালীন সময়ে সাংবাদিকদের সরকারের প্রণোদনা দিলেন ইউএনও তালায় জলাবদ্ধতা নিরসনে ও জনদূর্ভোগ লাঘবে অবৈধ নেট-পাটা অপসারণ বিশিষ্ট চাউল ব্যবসায়ী বাবুরালী সানার স্বরনে মাঝিয়াড়া ব্যবসায়ীদের শোক প্রকাশ সাংবাদিক আব্দুল আজিজ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত জেলা নাগরিক অধিকার ও উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির স্মারকলিপি প্রদান নরসিংদীতে রিক্সাচালকের করুণ কাহিনী শুনে আর্থিক অনুদান প্রদান ‘মা’ ফাউন্ডেশনের এক যুগ পুর্তি উপলক্ষে এমপি রবির সাথে মতবিনিময়

বিয়ের আসর থেকে পালাল বর

  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১০৬ বার পড়া হয়েছে

বড়গুনা প্রতিনিধি : বাড়ি জুড়ে বিয়ের আয়োজন বরগুনা বেতাগী উপজেলার বিবিচিনি ইউনিয়নের রায় বাড়িতে। নানা সাজে সেজে অগ্নি সাক্ষী রেখে সাতপাকে বাঁধা পড়ার অপেক্ষায় বর-কনে। বাহারি সাজে সজ্জিত পুরো বাড়ি। লাল নীল বাতি জ্বলছে বাড়ি জুড়ে। সম্পন্ন হয়েছে বিয়ের সব আয়োজন। বাকি শুধুই সাতপাকে অগ্নি প্রদক্ষিণ করা। এরই মধ্যে প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে বরগুনা বেতাগীর বিবিচিনি ইউনিয়নের এমনি এক বিয়ের পিঁড়ি থেকে পালিয়ে যান বর। এরপর বিয়ে বাড়ি থেকে একে একে সটকে পড়তে শুরু করেন অন্য অতিথিরাও। শীতের কুয়াশাচ্ছন্ন কনকনে ঠান্ডার মধ্যে একেবারে শেষ মুহূর্তে এভাবেই একটি বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছে বরগুনার বেতাগী উপজেলা প্রশাসন। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বেতাগী উপজেলার বিবিচিনি ইউনিয়নের দেশান্তরকাঠী গ্রামের সুনীল রায়ে অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া মেয়ের বাল্যবিয়ের আয়োজন করা হয় বৃহস্পতিবার রাতে। হিন্দুধর্মের শাস্ত্রমতে বিয়ের লগ্ন ছিল রাত ৯টায়। উপজেলার মোকামিয়া ইউনিয়নের এক পাত্রের সঙ্গে পরিবারিকভাবে আয়োজন করা হয় বিয়ের এই অনুষ্ঠান।

যথাসময়ে কনের বাড়িতে উপস্থিত হয় বরপক্ষ। পুরোহিতের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন বরও। এরই মধ্যে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের কাছে খবর পেয়ে বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হয় বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুহৃদ সালেহীন। তার উপস্থিতি টের পেয়েই ছোটাছুটি শুরু করেন বর ও কনের স্বজনরা। সবার চোখ এড়িয়ে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে যান বরও। পরে বিয়ে বন্ধ করে কনের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে উপজেলা প্রশাসন। বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে কনের স্বজনদের অবহিত করেন তারা। এরপর ভুল বুঝতে পারেন কনের স্বজনরা। এ বিষয়ে কনের বাবা সুনীল রায় বলেন, ‘বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে আমার জানা ছিল না। আমি এখন বুঝতে পেরেছি। তাই এই মুহূর্তে আমার মেয়েকে আর বিয়ে দেব না। ও এখন পড়াশোনা করবে। তারপর বয়স হলে ওর বিয়ে দেব।’ বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুহৃদ সালেহীন বলেন, ‘বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসন সদা তৎপর। অপ্রাপ্ত বয়সে কোথাও কোনো বিয়ের সংবাদ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকি আমরা। আমাদের এ তৎপরতা সবসময় অব্যাহত থাকবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ